ভারতের জনৈক পাঠক, জি নিউজে প্রকাশিত এ খবরের মন্তব্যের ঘরে লিখেছেন, ‘চিন্তার কিছু নেই, ভারতে বলিউডে যোগদান করতে চল‌ে আসুন৷ এখানে আপাতত নুন‌্যতম পোষাক-আষাক পরলেই চলবে৷ অদূর ভবিষ‌্যতে কিছু না পরলেও তত অসুবিধা বোধহয় হবে না৷’

জি নিউজের ঐ খবরের শিরোনাম ছিল ‘হিজাব না পড়ার অপরাধে ‘ব্যভিচারী’ আখ্যা পেলেন সাদাফ তাহেরিয়ান

প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, হিজাব না পড়ার অপরাধে কার্যত ‘ব্যভিচারী’ আখ্যা পেতে হল ইরানীয় মডেল সাদাফ তাহেরিয়ানকে। হিজাব না পরে নিজের বেশ কয়েকটি ফটো ইন্সটাগ্রামে পোষ্ট করেছিলেন তাহেরিয়ান। যার জন্য তাঁকে ‘ব্যভিচারী’ আখ্যা দিল ইরানীয় সরকার।

মুসলিম প্রথা অনুযায়ী মেয়ে
দের কোনও অচেনা পুরুষ বা আত্মীয় নন এমন কোনও পুরুষের সামনে আসার সময় হিজাব পড়তে হবে। যাতে ওই মহিলার শালীনতা বজায় থাকে। এই হিজাবের দ্বারা এই পুরুষটি তার মুখ এবং শরীর দেখতে পাবে না।

হিজাব পরিধান প্রথার বিরুদ্ধে গিয়ে হিজাব ছাড়াই ইন্সটাগ্রামে ছবি পোষ্ট করেছেন এই ইরানীয় মডেল। এই কাজের জন্য এখন অত্যন্ত বিতর্কের সম্মুখীন হতে হয়েছে তাঁকে।

ইরানের সংস্কৃতি মন্ত্রকের মতে, তেহেরিয়ান কোনও পশ্চিমী মিডিয়ার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে হিজাব ছাড়াই ফটো তুলেছেন। এছাড়াও কোনও ইরানীয়ান সিনেমাতে যাতে এই মডেলকে কোনও ভাবে কাজ করতে না দেওয়া হয় তার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এই মন্ত্রকের তরফ থেকে।

কিন্তু এই ঘটনার জন্য কোনও ভাবেই অনুতপ্ত নন তেহেরিয়ান। তিনি জানান, হিজাব পড়া বাধ্যতামূলক নয়। তিনি স্বাধীনভাবে বাঁচতে চান। তার জন্য হিজাব দিয়ে শরীরকে আবৃত করে রাখার কোনও মানেই হয় না। তিনি আরও জানান, আগে তিনি যে সমস্ত ইরানীয় সিনেমা করেছেন তাতে তাঁকে হিজাব পড়তে হয়েছে, কারণ তিনি নিজের কেরিয়ারের এবং সিনামার চাহিদার জন্যই হিজাব পড়েছিলেন।

26