রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রেজাউল করিম হত্যাকা-ের ঘটনায় তারই ছাত্র শরিফুলের জড়িত থাকার বিষয়টি অনেকটাই নিশ্চিত করেছে পুলিশ। পাশাপাশি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে আরও কয়েকজন ছাত্রের ফেসবুকে একটি পেইজের সম্পৃক্ততা।

যদিও শরিফুলের অবস্থান জানা যায়নি এখনো। তবে গেলো এক বছরে এই শিক্ষার্থী রহস্যময় বিদেশ ভ্রমণের তথ্য এসেছে তদন্ত সংস্থার হাতে। পরিবার বলছে, তাদের সাথে যোগাযোগ নেই শরিফুলের।

শরিফুল একই কলেজের ইংরেজী বিভাগের ছাত্র। তার বাড়ি বাঘমারার প্রত্যন্ত গ্রাম শ্রীপুরে। রাজশাহী কলেজে ইংরেজী বিভাগে ভর্তির পর থেকেই একটু একটু করে বদলে যেতে থাকে সে।

শরিফুলের মা লায়লা আরজুমান্দ বানু বলেন, আমার ছেলে পড়াশোনায় খুব ভালো ছিলো। কিন্তু সে হঠাৎ করে পড়াশোনা ছেড়ে দেয়াটা আমরা মেনে নিতে পারিনি। সে কি কারণে এরকম হলো আমরা তার কিছুই জানি না। এখন তার সাথে আমাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন।

শরিফুলের বদলে যাওয়া প্রথম দিকে বুঝতে পারেননি তার বাবা-মা। আর পরে যখন বুঝতে পারলো তখন অনেক দেরি হয়ে গেছে। পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে ততক্ষণে বাড়িও ছেড়েছে শরিফুল।

অধ্যাপক রেজাউল করিম হত্যা মামলার তদন্ত মেনে পুলিশ অনেকটা নিশ্চিত হয়েছে এ হত্যাকা-ের সাথে শরিফুলের সম্পৃক্ততা রয়েছে। সেই সাথে একই বিভাগের আরো একজন শিক্ষার্থীর নাম জড়িত থাকারও তথ্য পেয়েছে পুলিশ। তারা সবাই একই সঙ্গে থাকতো। তাদের ৭ থেকে ৮ জনের একটি গ্রুপ ছিলো। ফেসবুকে একটি পেইজও চালাতো তারা।
আরএমপি অতিরিক্ত কমিশনার সরদার তমিজউদ্দিন বলেন, শরিফুলকে খোঁজার ব্যাপারে তার আত্মীয়-স্বজন বা যেসমস্ত যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে মানুষ সেগুলোর মাধ্যমে তাকে খুঁজে বেড় করবো। তাকে পেলে তার সাথে কারা কারা জড়িত ছিলো সবই জানা যাবে।

এদিকে বাড়ি কিংবা কলেজের সাথে কোনো যোগাযোগ না থাকলেও গত এক বছরে একাধিক বার শরিফুল দেশের বাইরে গেছে বলেও তথ্য আছে। সূত্র : যমুনা টিভি

rejaui-marder-350x253