পল অ্যাডামসের কথা মনে আছে? মাথা নিচু করে হাত বাঁকিয়ে অদ্ভুতভাবে বল করতেন তিনি। এই অদ্ভুতুড়ে বোলিং অ্যাকশনের জন্যই ক্রিকেট বিশ্বে তাঁর নাম হয়েছিল ‘ফ্রগ ইন এ ব্লেন্ডার’। ১৯৯৫ সালে ইংল্যান্ড সফরে সবার নজর কেড়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ‘চায়নাম্যান’ পল অ্যাডামস। তবে ক্যারিয়ার খুব একটা দীর্ঘায়িত হয়নি তার। ৪৫ টেস্ট আর ২৪টি ওয়ানডে খেলেন অ্যাডামস।

এত দিন পর কেন আবার অ্যাডামসের কথা উঠছে? প্রশ্নটা আসতেই পারে। কথা উঠছে কারণ নতুন এক পল এডামসকে দেখছে ক্রিকেট বিশ্ব। আইপিএলে গুজরাট লায়ন্স-এর হয়ে খেলছেন তিনি। অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশনের জন্য এরইমধ্যে সকলের নজর কেড়েছেন। তিনি শিভিল কৌশিক। বোলিং করার সময় ঘাড় অদ্ভুতভাবে বেঁকে যায় কৌশিকের। বল ডেলিভারি দেওয়ার সময় অ্যাডামসের মতোই মাথা ঝুঁকে থাকে মাটির দিকে। ঠিক যেন আরেকজন পল অ্যাডামস।

শুধু পল অ্যাডামস কিম্বা শিভিল কৌশিক নয়, ক্রিকেট বিশ্ব এর আগেও অদ্ভুত কিছু বোলিং অ্যাকশন দেখেছে।এক্ষেত্রে ক্রিকেট ইতিহাসে অন্যতম সেরা স্পিনার শ্রীলঙ্কার মুত্তিয়া মুরালিধরন অন্যতম। এই বোলারের বোলিং স্টাইল এবং তার চোখ বড় বড় করে তাকানোই ব্যাটসম্যানদের ভয় পাইয়ে দেবার জন্য যথেষ্ট ছিল।বোলিং স্টাইলের দিক থেকে কম যান না মুরালিধরনের স্বদেশী লাসিথ মালিঙ্গাও। লঙ্কান এই পেসারের বোলিং অ্যাকশন এ যুগের সবচেয়ে অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন।তার এই স্টাইলের কারণেই হয়তো সেরা ইয়র্কার ডেলিভারিটা তিনিই দিতে পারেন। অস্ট্রেলিয়ান লেগ স্পিনার ব্র্যাড হগের বোলিং অ্যাকশনট্ওা একটু ভিন্ন। বল ডেলিভারি দেয়ার সময় তার জিহবা কামড়ে ধরা এবং এরপর হাসি দেয়াও যেন তার বোলিং অ্যাকশনেরই অংশ।

এ তালিকায় আরো কয়েকজনের নাম বলা যেতে পারে। যেমন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইমরান খান বল ডেলিভারির আগে লম্বা একটা লাফ দিতেন। শোয়েব আকতার দৌড় শুরু করতেন অনেকটা দূর থেকে। অবশ্য বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত অদ্ভুতুড়ে কোনো বোলারের আবির্ভাব হয়নি। সুত্রঃ আমাদের সময় ডট কম

6563